চিকন স্বাস্থ্য মোটা করার কয়েকটি প্রাকৃতিক উপায়

মোটা স্বাস্থ্য কমানোর জন্য আমরা কতকিছুই না করি।আবার একইভাবে আমাদের শরীরে অতিরিক্ত চিকন হয়ে গেলেও সমস্যা। কারণ অতিরিক্ত ওজন কমে গেলে আমাদের শরীর চিকন হয়ে যায় এবং এর ফলে আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। চিকন স্বাস্থ্য মোটা করা বলতে এই নয় যে মাত্রাতিরিক্ত মোটা এবং ফ্যাট জমিয়ে শরীরকে বড় করে ফেলা।এখানে চিকন স্বাস্থ্য মোটা করা বলতে বোঝানো হয়েছে একটি মানুষের অতিরিক্ত ওজন হ্রাসের সমাধান করা।চিকন সাস্থের জন্য শারীরিক সমস্যা  সাথে সাথে আরও বাহ্যিক বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়।যেমন নিজেকে বেমানান লাগা,পোশাক পড়লে তার সৌন্দর্য ফুটে না ওঠা, একই সাথে মানুষের কটুক্তি তো রয়েছেই।পাশের বিভিন্ন মানুষ বিভিন্ন কথা বললে আপনাকে খোচা মারবে এটাই স্বাভাবিক। তবে আপনার চিকন স্বাস্থ্য মোটা করার তীব্র ইচ্ছা থাকলে এই পোস্টটি আপনার জন্যই!

প্রাকৃতিক ভাবে মোটা হতে হলে আপনাকে যে সকল বিষয় মেনে চলতে হবে তা হল –

খাবারের পরিমাণ বাড়াতে হবে।তাই বলে এই নয় যে আপনি একগাদা খাবেন। আপনার স্বাস্থ্য খারাপ হওয়ার যদি প্রধান কারণ হয়ে থাকে খাদ্যের প্রতি অনীহা তাহলে খাদ্যের পরিমাণ বাড়াতে হবে।

অনেকেই ভাবেন বারবার খেলে মোটা হওয়া যায়। কিন্তু এ ধারণাটি সম্পূর্ণ ভুল।বার বার অনেক পরিমাণে খাওয়ার ফলে স্বাস্থ্য বাড়ানোর বদলে স্বাস্থ্য ঝুঁকি বেড়ে যায়।তাই এই সব ধারণা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।

নির্দিষ্ট সময়ে আহার গ্রহণ একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কারণ সময়ে আহার গ্রহণ না করলে এবং আবার এর টাইম ঠিক না থাকলে আমাদের শরীরের তার বিরূপ প্রভাব ফেলে। যতই ব্যস্ততা থাকুক না কেন নির্দিষ্ট সময় আহার গ্রহণ করতে হবে ।

প্রচুর পরিমাণে পুষ্টি কোন ফলমূল শাকসবজি খেতে হবে।এর পাশাপাশি আমিষ জাতীয় খাবারের পরিমাণ বাড়িয়ে দিতে হবে।

খেজুর,কিসমিস,বাদাম জাতিয় খাবার বেশি খান।কারন এসকল খাবারে ক্যালরির পরিমান বেশি থাকে।যা আমাদের শরীরকে মোটা করতে সাহায্য করে।

ঘুম ঠিক করা -ঘুম আমাদের মানব শরীরের জন্য অন্যতম একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান যদি আমাদের ঘুম ঠিক না থাকে তাহলে আমাদের স্বাস্থ্য খারাপ হতে পারে ।চিকন সাস্থের জন্য নিয়মিত না ঘুমানো অন্যতম একটি কারণ।

নিয়মিত ব্যায়াম করা -অনেকেই শুনে হয়তো অবাক হচ্ছেন যে নিয়মিত ব্যায়াম করার কথা। কারণ অনেকেই ভাবেন মানুষ ব্যায়াম করে স্বাস্থ্য কমানোর জন্য। কিন্তু এই ধারনা ভুল কারন ব্যায়াম করলে আমাদের মাংস পেশি বৃদ্ধি পায় এবং শরীরের গঠন সুন্দর হয়। তবে এক্ষেত্রে আমাদের অভিজ্ঞ ব্যক্তিদের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যায়াম করতে হবে। তা না হলে হিতে বিপরীত হতে পারে।

রাতে ঘুমানোর আগে এক গ্লাস দুধের ভিতর খানিকটা মধু মিশিয়ে খান এতে ভালো কাজ দেবে।

এসকল করার পরেও যদি আপনার স্বাস্থ্য ভালো না হয় তাহলে অবশ্যই একজন অভিজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নিন। এবং পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে জানুন আপনার শরীরে কোন সুপ্ত রোগ আছে কিনা।অনেক সময় বিভিন্ন রোগের কারণ ও স্বাস্থ্য খারাপ হয়ে যায়।

(Visited 17 times, 1 visits today)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *