পৃথিবীর সর্বপ্রথম ব্যবসাসফল ল্যাপটপের ইতিহাস

ল্যাপটপ হচ্ছে কম্পিউটারে পোর্টেবল ভার্সন। ল্যাপটপ আবিষ্কার এর মূল কারণ হচ্ছে কম্পিউটার এক জায়গায় সেট করে রাখা হয়। এটি বহন করা অনেক ঝামেলার ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়। তাই বিভিন্ন কাজে বাসা বা অফিসের বাইরে কম্পিউটার নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয় না। আর এ কারণেই তৈরি করা হয়েছে ল্যাপটপ। তবে প্রথমে কম্পিউটার সাধারণ মানুষের ব্যবহারের জন্য ছিল না। এটি শুধু এই ব্যবহার করা হতো গবেষণাসহ হিসাব নিকাশ। এবং সেনাবাহিনীদের কাজে। কারণ কম্পিউটার আবিষ্কারের প্রথম দিকে কম্পিউটারে এতকিছু সুবিধা ছিল না। বর্তমান কম্পিউটারের গুলো যেমন একদিকে হিসাব নিকাশ করা যায় তেমনি তথ্য সংরক্ষণ, ইন্টারনেট ব্রাউজিং, মাল্টিমিডিয়া সহ বিভিন্ন কাজ করা যায়।

এছাড়াও এটি সহজলভ্য হওয়ায় এর ব্যবহার খুবই বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে অধিকাংশ মানুষই কম্পিউটার ব্যবহার করে অফিস-আদালতের কাজ ছাড়াও ব্যক্তিগত কাজের জন্য। ল্যাপটপ এর ভিতরে কম্পিউটারের সকল সুবিধাই থাকে। ডেক্সটপ কম্পিউটারে যেরকম প্রত্যেকটি পার্ট আলাদাভাবে থাকে যেমন মনিটর,সিপিইউ,কীবোর্ড,মাউস স্পিকার। এবং এটি চালানোর জন্য সরাসরি বিদ্যুতের প্রয়োজন হয়। আর এই জন্যই এটি পোর্টেবল না এটি নির্দিষ্ট স্থানে সেট করে তারপরে ব্যবহার করা হয়। তবে বিভিন্ন কাজের জন্য অফিস বা বাসার বাইরে যাওয়া হয়। তখন কম্পিউটার এর প্রয়োজন পড়ে। আর এই প্রয়োজনকে মাথায় রেখেই ল্যাপটপ এর আবিষ্কার হয়। তাহলে জেনে নেওয়া যাক ব্যবসাসফল প্রথম ল্যাপটপ টি সম্পর্কে!

প্রথম ব্যবসাসফল ল্যাপটপ আবিষ্কার করে এপসন কোম্পানি।অসবর্ন ১ নামে এটি প্রথম তৈরি করা হয় ১৯৮১ সালের এপ্রিলের ৩ তারিখ তৈরি করা হয়। এটির ওজন ছিল 10 কেজি 700 গ্রাম। চালানোর জন্য কোন প্রকার ব্যাটারি ছিলনা এটিতে। সরাসরি মেইন সকেটের মাধ্যমে এটি চালাতে হতো। এর অপারেটিং সিস্টেম ছিল CP/M 2.2 এবং এটি তৈরিতে খরচ হয়েছিল  ১৭৯৫ ডলার। এটি ছিল সহজে বহনযোগ্য একটি ল্যাপটপ কম্পিউটার।

এটি তৈরিতে ব্যবহৃত হয়েছিল  ৬৪ কেবি র্যাম। এবং প্রসেসর হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছিল Zilog Z80 যেটা ছিল 4.0 মেগাহার্জ ক্ষমতা সম্পন্ন।

এর পরবর্তীতে ল্যাপটপ এর চাহিদা দিন দিন বৃদ্ধি পাওয়ায়। বিভিন্ন কোম্পানির ব্যবসায়িক ভিত্তিতে ল্যাপটপ প্রস্তুত শুরু করে। এবং এর ক্রমবর্ধমান উন্নতির কারণে বর্তমানে সাধারণ মানুষের ব্যবহার যোগ্য হয়ে উঠেছে ল্যাপটপ। বর্তমান বাজারে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের বিভিন্ন সুবিধা সম্পন্ন ল্যাপটপ রয়েছে। এছাড়া ল্যাপটপের আকার এবং ওজন এ পরিবর্তন আসার ফলে এটি খুব সহজেই ব্যবহার যোগ্য হয়েছে। এবং এর মূল্য দিন দিন কমে আসছে। বর্তমানে খুব অল্প দামে বাজারে ভালো ভালো সুবিধা সম্পন্ন ল্যাপটপ পাওয়া যায়। যা শুধুমাত্র সম্ভব হয়েছে প্রযুক্তির উন্নতির কারণে। এবং এর মাধ্যমে শিক্ষা,চিকিৎসা, গবেষণা,বিনোদন সহ সকল কাজই করা যায়।আমাদের দেশেও অধিকাংশ মানুষ তাদের ব্যাক্তিগত কাজে এবং অফিশিয়াল কাজে ল্যাপটপের ব্যাবহার করছে।এই ল্যাপটপ কম্পিউটার কম্পিউটারের ধারনা বদলে দিতে সক্ষম হয়েছে।

Similar Posts:

    None Found

(Visited 28 times, 1 visits today)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *