রক্তশূন্যতা হলে বোঝার উপায় এবং করনীয় কি

রক্তস্বল্পতা আমাদের শরীরে বিভিন্ন কারণে হয়ে থাকে।  পুষ্টিহীনতার কারণে আমাদের শরীরের রক্ত স্বল্পতা দেখা দিতে পারে। তবে যে শুধুমাত্র পুষ্টিহীনতার কারণে আমাদের শরীরের রক্ত সল্পতা দেখা দেয় তা নয়। এছাড়াও বিভিন্ন রোগের কারণে আমাদের রক্তস্বল্পতা দেখা দিতে পারে। থ্যালাসেমিয়া আক্রান্ত রোগীরা এবং কিছুকিছু জন্মগত রোগের কারণে রক্তস্বল্পতা দেখা দিতে পারে। তাই শুধুমাত্র রক্তস্বল্পতা লক্ষণ দেখা দিলে একে স্বাভাবিকভাবে না নিয়ে ডাক্তারের পরামর্শ নেয়া উচিত। যে সকল কারণে রক্তস্বল্পতা দেখা দিতে পারে তা হল-

পুষ্টিকর খাদ্যের অভাব। শরীরে পুষ্টির ঘাটতি দেখা দিলে রক্তশূন্যতা দেখা যায়। আয়রনের অভাব  জনিত কারণে রক্তশূন্যতা দেখা দেয়। দীর্ঘদিন ধরে ব্যথার ওষুধ সেবন করলে রক্তশূন্যতা দেখা দিতে পারে। থালাসেমিয়া, কিডনির সমস্যা এছাড়া জন্মগত বিভিন্ন রোগের কারণে রক্তশূন্যতা দেখা দেয়। রক্তে হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ কমে গেলে এনিমিয়া দেখা দিতে পারে। রক্ত তৈরির প্রধান উপাদান আয়রনের ঘাটতি থাকলে রক্তশূন্যতা দেখা দেয়। দীর্ঘমেয়াদী বিভিন্ন রোগের কারণে। দীর্ঘমেয়াদী সংক্রমণ যক্ষা,ক্যানসার, থাইরয়েড জন্যই তো সমস্যা, অস্থি মজ্জার সমস্যা, এবং নির্দিষ্ট সময়ের আগে রক্ত কণিকা ভেঙ্গে যাওয়া রক্তক্ষরণ ইত্যাদির কারণেও রক্তশূন্যতা দেখা দিতে পারে।

তবে আমরা যেসব উপসর্গে বুঝতে পারব আমাদের রক্তস্বল্পতার রয়েছে সেগুলো  হলো-

রক্তশূন্যতা হলে চোখ মুখ ফ্যাকাশে হয়ে যেতে পারে। চোখে ঝাপসা দেখা, মাথা ঘোরা, শরীর অত্যাধিক পরিমাণে দুর্বল লাগা, এছাড়া রক্তশূন্যতা প্রকট হলে শ্বাসকষ্ট হওয়া, বুকে চাপা লাগা ছাড়াও মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারেন এমনকি হার্ট ফেল হতে পারে।  সাধারণ উপসর্গ দেখা দিলে এর ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। তবে খুব দ্রুত এর থেকে সুস্থতা না পাওয়া গেলে  দ্রুত অভিজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নেয়া অত্যন্ত জরুরি একজন অভিজ্ঞ ডাক্তার রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে রক্তশূন্যতার কারণ শনাক্ত করতে পারেন। এবং সেই মোতাবেক চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে পারেন।

রক্তশূন্যতা হলে যে সকল জিনিস আমাদের করণীয়, রক্তশূন্যতা হলে অনেকেই আয়রন এর ঔষধ কিনে খান কিন্তু এটা মোটেও ঠিক নয়। তাই রক্তশূন্যতার সঠিক কারণ খুঁজে বের করা অত্যন্ত জরুরী। এছাড়া রক্তশূন্যতার কারণ হিসেবে যদি পেপটিক আলসার, পাইলস বা ক্যান্সার জাতীয় কিছু ধরা পড়ে তাহলে ডাক্তার সিদ্ধান্ত নেবেন কি ট্রিটমেন্ট করা উচিত। তবে রক্তশূন্যতা হলে যে এই সকল জটিল ব্যাধি হয়েছে এগুলো মনে করে ভেঙে পড়া মোটেও ঠিক নয়। কারণ সাধারণ কারণে রক্তশূন্যতা দেখা দিতে পারে তাই মানসিকভাবে ভেঙে না পড়ে চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করুন। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে পুষ্টিহীনতার কারণে রক্তশূন্যতা অধিক দেখা দেয়। তাই সাধারন রক্তশূন্যতায় ঔষধ সেবন না করে উপযুক্ত খাবার এর মাধ্যমে এটা দূর করা যায়। রক্তশূন্যতা যে সকল খাবার খাওয়া উচিত তা হল-

প্রাণিজ প্রোটিন বেশি পরিমাণে গ্রহণ করা। প্রাণিজ প্রোটিনের মূল উৎস হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের মাংস। যেমন গরুর মাংস,খাসির মাংস, মুরগির মাংস ইত্যাদি। খাসির মাংস এবং এর কলিজা আয়রনের একটি ভালো উৎস তাই দ্রুত রক্ত বৃদ্ধিতে সকল খাবার খাওয়া অত্যন্ত জরুরি। ডিম  খেতে হবে ডিমে প্রচুর পরিমাণে আয়রন পাওয়া যায়। ডিমের কুসুমে প্রচুর পরিমাণে খনিজ পুষ্টি এবং ভিটামিন পাওয়া যায়। এক্ষেত্রে ডিম একটি আদর্শ খাবার।

বিভিন্ন ধরনের ফল খাওয়া। বেশি পরিমাণে ভিটামিন সি যুক্ত ফল খাওয়া উচিত কারণ ভিটামিন সি আমাদের শরীরে আয়রন শুষে নিতে সাহায্য করে। তাই আমাদের রসালো সাইট্রাস জাতীয় ফল বেশি করে খাওয়া উচিত। প্রতিদিন তাজা শাকসবজি খাওয়া উচিত। বাদাম খাওয়া যেতে পারে।কারণ বাদাম আমাদের শরীরের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় এবং উপকারী একটি খাবার।রক্তশূন্যতা যদি পুষ্টি জনিত কারণে হয়ে থাকে তাহলে এই সমস্ত খাবার খেলে দ্রুত শরীরে নতুন রক্ত উৎপাদিত হওয়া শুরু করবে।এবং রক্তস্বল্পতা দূর হয়ে যাবে।

 

(Visited 19 times, 1 visits today)

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *