সঠিকভাবে সাঁতার কাটার কয়েকটি নিয়ম

সাঁতার শেখা আমাদের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় এবং উপকারী একটি বিষয়। সাঁতার জানা হলে আমরা বিভিন্ন প্রকার বিপদের হাত থেকে রক্ষা পেতে পারি। বাংলাদেশ নদীমাতৃক দেশ আমাদের দেশে অসংখ্য নদী রয়েছে তাই আমাদের প্রত্যেকেরই কম বেশি নদী পথে ভ্রমণ করা লাগে। তাই আমাদের সাঁতার জানে রাখাটা অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। এছাড়া সাঁতার এর মাধ্যমে শরীরের সমস্ত অঙ্গপ্রত্যঙ্গের ব্যায়াম হয়। যা অন্য কোন ব্যায়ামের মাধ্যমে সম্ভব নয়। আমরা সুইমিংপুলে সাঁতার কাটি আবার অনেকেই সমুদ্র সৈকতে ঘুরতে গিয়ে সাঁতার কেটে  থাকি সমুদ্র স্নানের সময়।তবে সঠিক নিয়মে সাঁতার জানা না থাকলে ঘটে যেতে পারে বিভিন্ন ধরনের দূর্ঘটনা। তাই আমাদের প্রত্যেকেরই সাঁতার জানা অত্যন্ত জরুরী একটি বিষয়। এটি যে শুধুমাত্র বিপদ থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্যই তা নয় এর মাধ্যমে আমরা শারীরিক ব্যায়াম ছাড়া ও বিনোদন পেতে পারি।  সাঁতারের সঠিক নিয়ম গুলো তুলে ধরা হলো-

আমরা অনেকেই সাঁতার কাটার সময় হাত-পা ছোড়াছুড়ি এবং দাপাদাপি   করে থাকি। যার ফলে আমরা ছোট সুইমিং পুল বা পুকুরের এক পার থেকে অন্য পাড়ে পৌঁছাতেই হাঁপিয়ে যাই।এবং ৫-৭ মিনিট সাঁতার কাটার পরে আর দম থাকে না আমাদের শরীরে। তবে সঠিক নিয়মে সাতার শিখলে আমরা সাঁতার এর মাধ্যমে এক থেকে দুই মাইল পথ পাড়ি দিতে পারি। সাঁতার কাটার সময় আমরা দম বন্ধ করে পানিতে ডুব দিয়ে সাঁতার কাটলে  দ্রুত আগাতে পারব। কারণ মাথা পানির উপরে তুলে সাঁতার কাটলে আমাদের  শরীর বাঁকা হয়ে থাকে এর ফলে পানি আমাদের শরীর এগোনোর ক্ষেত্রে বাধা প্রদান করে। আর এ কারণেই সোজা হয়ে এবং মাথা পানির নিচে ডুব দিয়ে সাঁতার কাটা উচিত। আমরা সাধারণত একবার নিঃশ্বাস নিয়ে প্রায় ৩০ সেকেন্ড তা ধরে রাখতে পারি। এবং একবার নিঃশ্বাস নিতে সময় লাগে দুই থেকে তিন সেকেন্ড। তাহলে এক মিনিট সাঁতার কাটতে মাত্র দুইবার নিঃশ্বাস গ্রহণ করলেই আমরা অনেক দূর এগিয়ে যেতে পারবো। সাঁতার কাটার সময় যখন পানির নিচে মাথা ডুবিয়ে সাঁতার কাটা হবে তখন কখনোই আতঙ্কিত হওয়া যাবে না। আতঙ্কিত হয়ে পড়লে দ্রুত নিঃশ্বাস নিতে হবে যার ফলে দ্রুত দুর্বল হয়ে  পড়তে হয়। সাঁতার কেটে দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে হলে সে সময় কখনোই ভেঙে পড়া যাবে না মনোবল রেখে এবং কিছু টেকনিক খাটিয়ে সাঁতার কাটতে হবে। আমরা যেরকম হাটতে গেলে  হাঁপিয়ে গেলে হাঁটার গতি কমিয়ে দিয়ে আমরা কিছুটা বিশ্রাম নিতে পারি। সাঁতারের ক্ষেত্রেও ঠিক তেমন যখন সাঁতার কাটতে কাটতে কষ্ট হয়ে যাবে তখন সাঁতারের গতি কমিয়ে দিয়ে আস্তে সাঁতার কাটলে কষ্ট কম হবে এবং অনেক সময় সাঁতার কাটতে পারব। এছাড়া আমাদের এটা সকলেরই জানা উচিত শ্বাস প্রশ্বাস বন্ধ রাখা অবস্থায় পানিতে হাত পা নাড়াচাড়া না পড়লেও আমরা কখনই ডুবে যাব না। এবং সাঁতার কাটার সময় হাত পা দুটোই সমান ব্যবহার করতে হবে এতে সামনের দিকে আমরা দ্রুত এগোতে পারব।

যারা প্রথম সাঁতার কাটতে চান তারা প্রথমেই গভীর পুকুর বা সুইমিংপুল অথবা সমুদ্রে একা একা সাতার কাটার চেষ্টা করবেন না। সাথে যে সাঁতার কাটতে দক্ষ তাকে সাথে রাখুন। এবং লাইফ সাপোর্টের জন্য প্লাস্টিকের লাইফ জ্যাকেটের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পরেন এবং তার পরই সাঁতার  কাটার চেষ্টা করুন। সাঁতার কাটার জন্য বিশেষ ধরনের চশমা কিনতে পাওয়া যায় সেগুলো ব্যবহার করতে পারেন। এগুলো সাধারণত ২০০ থেকে ৩০০ টাকা মূল্য নিতে পারে। আপনি ৫ থেকে ৭ দিন ভালভাবে প্র্যাকটিস করলেই পুরোপুরি সাঁতার শিখে যেতে পারবেন।

(Visited 9 times, 1 visits today)

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *