শরীরের কোন ভিটামিনের অভাব বুঝবেন যেসব উপসর্গ থেকে

মানুষের বেঁচে থাকতে প্রয়োজন খাদ্য। কারণ কোন মানুষ খাদ্য ছাড়া বাঁচতে পারে না। কিন্তু সুস্থ-সুন্দর ভাবে বেঁচে থাকতে হলে মানুষের প্রয়োজন পুষ্টিকর খাদ্য। কারণ শুধুমাত্র খাদ্য আমাদের পেটের ক্ষুদা ঠিকই নিবারন করে কিন্তু আমাদের শরীরের প্রয়োজন মেটাতে অক্ষম। কারন আমাদের শরীরের সকল কাজ ঠিকমতো  করতে প্রয়োজন ভিটামিনের  এবং অন্যান্য  উপাদানের। আমাদের শরীরে ভিটামিনের অভাব দেখা দিলে বিভিন্ন উপসর্গ আমরা বুঝতে পারি। কিন্তু আমরা সঠিক উপসর্গ না জানার কারণে ভুল ধারণা শিকার হই। কারণ আমরা একটি উপসর্গ দেখে ভাবি অন্য কোনো সমস্যা হয়েছে।আমাদের শরীরে ভিটামিনের প্রয়োজনীয়তা অন্য স্বীকার্য এবং ভিটামিনের অভাব দীর্ঘদিন থাকলে বিভিন্ন জটিল সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই আমাদের জানা উচিত কোন কোন ভিটামিনের অভাবে কোন কোন উপসর্গ দেখা দেয়। আজ আমরা জেনে নেব শরীরের কোন ভিটামিনের অভাবে কোন উপসর্গ দেখা দেয় –

শীতকাল এলেই আমাদের অনেকেরই ঠোঁট ফেটে যায় এবং ঠোঁট শুষ্ক হয়ে যায়। যাদের শীতকাল আসার সাথে সাথেই ঠোঁট করা শুরু করে এবং ঠোঁট শুষ্ক হয়ে যায় তাদের বুঝতে হবে। শরীরে ভিটামিন বি 12 এর অভাব আছে। টাইগার সকল খাবারে ভিটামিন বি 12 আছে সেগুলো খাওয়া অত্যন্ত জরুরি।আমাদের অনেকেরই চুল সাধারণ উজ্জলতা হারিয়ে ফেলে।চুল রুক্ষ হয়ে যায়। মাথায় খুশকির প্রবণতা দেখা দেয়। এরকম হলে আপনাকে অবশ্যই বুঝে নিতে হবে আপনার শরীরে ফ্যাটি এসিড এর অভাব আছে। এক্ষেত্রে চুলের সাধারণ উজ্জলতা ফিরিয়ে আনতে ফ্যাটি এসিড সমৃদ্ধ খাবার অত্যন্ত প্রয়োজনীয়।

কাজুবাদাম মাশরুম যা কপালে দেখছি অন্যতম প্রধান উৎস। আমাদের শরীরের কভারের ঘাটতি দেখা দিলে চুল পেকে যাওয়ার মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই যদি অল্প বয়সে কেন চুল পাকে দেওয়া শুরু করে। তাহলে বুঝে নেবেন শরীরে কপারের ঘাটতি আছে।এবং যেসব খাবারে কপারের উপস্থিতি রয়েছে সে সকল খাবার গ্রহণ করতে হবে।

আমার অনেকেই আছে যাদের সকালে বা রাতের বেলা হাত পায়ের গিটে প্রচন্ড বা হালকা ব্যথা অনুভব হয়। মূলত গাঁটের ব্যথা গুলো দেখা দেয় ক্যালসিয়ামের ঘাটতি থাকলে।

সামান্য আচর লাগলে কেটে যাওয়ার অন্যতম কারণ হতে পারে ভিটামিন সি এর অভাব। কারণ ভিটামিন সি এর অভাবে আমাদের শরীরের ত্বকের স্বাভাবিক ক্ষমতা হারিয়ে ফেলে যার কারনে সামান্য আঘাতেই আমাদের চামড়া ফেটে যায় বা ছিড়ে দেয়।এক্ষেত্রে ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার প্রচুর পরিমাণে খেতে হবে।আপনি কি কোন কাজ না করে অবসাদ অনুভব করছেন? এর প্রধান কারণ হতে পারে ভিটামিন ডি এর অভাব। কিন্তু সমস্যা হলো ভিটামিন ডি কম পরিমাণে পাওয়া যায় খাবার থেকে। তাহলে আল্লাহ জামাইবাবু কোথায়! ভিটামিন বি এর অন্যতম প্রধান উৎস হচ্ছে রোদ। রোদে ভিটামিন ডি এর উপস্থিতি রয়েছে।তবে যেকোনো সময় রোদে বসে থাকলে আমাদের দেহে ভিটামিন ডি তৈরি হবে না। সকালবেলার রোদে ভিটামিন ডি থাকে।তবে 11 টার পরে আর রোজা থাকা উচিত না।

(Visited 10 times, 1 visits today)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *