সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন SEO কি এবং প্রয়োজনীয়তা

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন সংক্ষেপে এটিকে আমরা এসইও (SEO) বলে থাকি। আমরা অনেকেই অনেক ওয়েবসাইট,ব্লগ,ফোরাম সাইট ইত্যাদি করে থাকি। আমরা যে ওয়েবসাইট গুলো করে থাকি তার মুল প্রাণ হচ্ছে ভিজিটর। কারণ আপনার সাইট টিতে যতই ভালো মানের এবং গুরুত্বপূর্ণ তথ্য থাক না কেন। যদি তাতে ভিজিটর না পাওয়া যায় তাহলে তার কোনো মূল্যই থাকে না। কারণ আমরা  মূলত ওয়েবসাইট গুলো তৈরি করে থাকি ভিজিটরের জন্য। তাহলে প্রশ্ন হচ্ছে আমরা যদি নতুন কোন ওয়েবসাইট করি তাহলে সবাই তো আর আমাদের ওয়েবসাইটের এড্রেস জানবে না। বা জানার কথা না। তাহলে ভিজিটর আমাদের ওয়েবসাইটকে কিভাবে খুজে পাবে?

এই প্রশ্নটি যদি আপনাদের করা হয় তাহলে আপনারা খুব সহজেই বলে দেবেন গুগল বা বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিনে সার্চ করার মাধ্যমে ভিজিটর আমাদের ওয়েবসাইটকে খুঁজে পাবে। তাহলে কি আমাদের ওয়েবসাইট তৈরি করলেই ভিজিটর গুগোল বা অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিনে সার্চ করলে ভিজিটর দের সামনে আমাদের ওয়েবসাইট আপনাআপনি  গিয়ে হাজির হবে?

এটা কখনোই সম্ভব না কারণ বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিন তো আর জেনে বসে নেই যে আপনি নতুন একটি ওয়েবসাইট তৈরি করেছেন । তাই এটি সার্চ ইঞ্জিনকে জানানোর কাজটাই হচ্ছে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন বা  SEO।

তাহলে এসইও সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক!

এসইও সাধারণত তিন প্রকার।

১ঃহোয়াট হ্যাট এসইও(White hat SEO)

২ঃ ব্ল্যাক হ্যাট এসইও(Black hat SEO)

৩ঃ গ্রে হ্যাট এসইও(Gray hat SEO)

হোয়াইট হ্যাট এসইও কিঃ

কোন স্প্যামিং ছাড়াই সার্চ ইঞ্জিন গুলোতে কী ওয়ার্ড রেংকিং করানোকেই হোয়াইট হ্যাট এসইও বলে। হোয়াইট হ্যাট এসইও আবার দুই প্রকারঃ

১ঃঅনপেজ এসইও

২ঃঅফপেজ এসইও

অনপেজ এসইওঃ-

একটি ওয়েব পেজকে রেংক করানোর জন্য ওয়েবসাইট এর ভিতরে যে সকল কাজ করা হয় তাকে অন পেজ এসইও বলা হয়।যেমনঃ

১-ডোমেইন,ডোমেইন নাম নির্বাচন।

২- টাইটেল,ডিসক্রিপশন,কী ওয়ার্ড।

৩-নো ফলো,ডু ফলো।

৪- এইচটিএমএল ট্যাগ H1,H2 এবং H3.

৫- কিওয়ার্ড রিসার্চ।

৬- ওয়েবসাইট এনালাইসিস।

৭- কনটেন্ট অপটিমাইজেশন ইত্যাদি।

এই সকল কাজগুলোকে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের ভাষায় অন পেজ এসইও বলা হয়।

অফ পেজ এসইওঃ

অফপেজ এসইও হচ্ছে ওয়েবসাইটের প্রচার প্রচারণার কাজ। যেমন লিংক বিল্ডিং, ইউ আর এল শেয়ার ইত্যাদি।

অফ পেজ এসইও তে যেগুলো করতে হয় তা হল-

– ওয়েব 2.0

-ফোরাম পোস্টিং

-লিংক বিল্ডিং

-আর্টিকেল সাবমিশন

-সোশ্যাল বুকমার্কিং

-রিভিউ সাবমিশন

-ডিরেক্টরি সাবমিশন

– ইমেইল মার্কেটিং ইত্যাদি

এই সকল কাজেই হচ্ছে অফ পেজ এসইও মূল বিষয়বস্তু।

ব্ল্যাক হ্যাট এসইওঃ

সার্চ ইঞ্জিন গুলো কে বোকা বানিয়ে পেজ গুলো   রেংক করার জন্য আমরা যে সকল পদ্ধতি অবলম্বন করে থাকি এগুলোকে ব্ল্যাক হ্যাট এসইও বলা হয়।

গ্রে হ্যাট এসইওঃ

হোয়াইট হ্যাট এসইও এবং ব্ল্যাক হ্যাট এসইও সংমিশ্রণে যে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন করা হয় তাকে গ্রে হ্যাট এসইও বলা হয়।

এসইও শেখার মাধ্যমে আপনি অর্থও উপার্জন করতে পারবেন। কেননা বর্তমানে এসইও এক্সপার্ট দের প্রচুর চাহিদা রয়েছে। এছাড়া এসইও আরো বিভিন্ন কাজে লাগে যেমন সিপিএ মার্কেটিং,এফিলিয়েট মার্কেটিং এর কাজ করতে হলে আপনাকে অবশ্যই এসইও বা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন জানতে হবে।

Similar Posts:

(Visited 12 times, 1 visits today)

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *