সুস্থ থাকার কয়েকটি অব্যর্থ টিপস

সুস্থ সবল শরীর  আমাদের সকলের কাম্য। কিন্তু সুস্থতা অর্জন করা খুব একটা সহজ বিষয় নয়।আমাদের অনেক নিয়ম কানুন মেনে চলতে হয় শরীরকে সুস্থ এবং সুন্দর রাখতে।কিছু নিয়ম কানুন মেনে না চললে আমাদের শরীর বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে পারে। এবং  বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়। এছাড়া এসকল নিয়মকানুন মেনে না চললে আমরা বিভিন্ন ধরনের রোগে আক্রান্ত যেমন ব্লাড প্রেসার বৃদ্ধি ডায়াবেটিস ইত্যাদি সমস্যার সম্মুখীন হতে পারি।আর এ কারনেই আমরা শরীর গঠনের কিছু টিপস জেনে নেব। যা আমাদের নিত্যদিনের জীবনে কাজে দেবে।এবং আমাদের সুস্থ থাকতে সাহায্য করবে।

তাহলে জেনে নেয়া যাক কয়েকটি প্রয়োজনীয় দিক সম্পর্কে –

প্রতিদিন সকালের নাস্তা করা -সকালের নাস্তা আমাদের শরীরের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।কারণ সারা দিনে আমরা অনেক কাজকর্ম করি এবং সেগুলোর জন্য প্রয়োজন অনেক শক্তির। আরে সকল কাজের জন্য আমাদের শক্তি যোগায় খাদ্য। তাই সকালের নাস্তা করা অত্যন্ত জরুরি। সকালের নাস্তায় আমরা পুষ্টিকর খাবার রাখতে পারি।যেমন দুধ, ডিম, কলা,ফলমূল ও শাকসবজি।

ভাতের উপর নির্ভরশীলতা কমানো -আমরা বাঙালি আমাদের প্রধান খাদ্য ভাত।কিন্তু ভাত আমাদের শরীরের মেদ জমতে সাহায্য করে। তাই ভাতের উপর নির্ভরশীলতা কমিয়ে ফলমূল,শাকসবজি এবং পুষ্টি সমৃদ্ধ খাবারের দিকে ঝুকতে পারি। আমাদের প্রতিদিন আড়াই কাপ শাকসবজি এবং দুই কাপ ফলমূল খাওয়া উচিত।

ছবি:কোন ফল কি উপকার করে।

নির্দিষ্ট সময়ে খাবার গ্রহণ -নির্দিষ্ট সময়ে খাবার ভাল সুস্থ থাকার অন্যতম একটি উপায়।কারণ খাবারের টাইম ঠিক না থাকলে আমাদের শরীরে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে পারে। প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময় খাবার উপর না করলে আবার পরিবারের সমস্যা হতে পারে। সকালের নাস্তা আমাদের ঘুম থেকে ওঠার 30 মিনিটের ভিতরে পড়া উচিত।

সকালের নাস্তা-সকাল ৭ টা থেকে ৯ টার ভিতরে করতে হবে(১০ টার পরে সকালে নাস্তা করা উচিত নয়)

দুপুরের খাবার-১২-৩০ থেকে ২ টার ভিতরে খেতে হবে(এরপরে খাবার খেলে তা আমাদের শরীরে অতিরিক্ত মেদ হিসেবে জমে শরীরের ক্ষতি সাধন করে)

রাতের খাবার-রাতের খাবার আমাদের  ৮ টা থেকে ১০ টার ভিতরে সম্পন্ন করতে হবে (বেশি রাতে খাবার খেলে পরিপাকে সমস্যা হয়) ।

নির্দিষ্ট পরিমাণ পানি পান করা -পানি হচ্ছে আমাদের শরীরের জন্য  অন্যতম একটি  উপাদান। পরিমাণমতো পানি পান করলে আমাদের শরীর সুস্থ থাকবে। একজন প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষের জন্য 13 গ্লাস এবং একজন প্রাপ্ত বয়স্ক মহিলার জন্য নয় গ্লাস পানি পান করা উচিত।

নিয়মিত ব্যায়াম করা -মে মদের শরীরকে সুস্থ রাখতে সহযোগিতা করে। এটি আমাদের শরীরকে একদিকে যেমন সুস্থতা দান করে অপরদিকে শরীরের ফিটনেস বজায় রাখতে সাহায্য করে। তাই সুস্থ শরীর এবং সুন্দর দেহ তৈরি করতে ব্যায়াম এর কোন বিকল্প নেই।প্রতিদিন কমপক্ষে 30 মিনিট করে হাঁটতে হবে। থাকলে আমাদের শারীরিক এবং মানসিক উভয় বিষয় উপকার সাধন হবে।

এসকল সাধারন বিষয়গুলো মেনে চললে আপনি সুস্থ থাকতে পারবেন এবং কম রোগ আক্রান্ত হবেন। তাই সকল বিষয়গুলো মেনে চলার চেষ্টা করুন।

 

(Visited 11 times, 1 visits today)

2 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *