কম্পিউটারের ভাইরাস কি এবং কিভাবে কাজ করে

ভাইরাস হচ্ছে এমন একটি প্রোগ্রাম যেটি কম্পিউটার এর ভিতরে প্রবেশ করে কম্পিউটারের বিভিন্ন ক্ষতি সাধন করে থাকে। ভাইরাস মূলত আলাদা কোন সফটওয়্যার বা ফাইল নয়। এটি এমন একটি প্রোগ্রাম যা আপনার কম্পিউটারে থাকা বিভিন্ন ফাইল বা সফটওয়্যার এর মধ্যে মিশে থাকে। তাই আপনি চাইলে খুব সহজেই সনাক্ত করতে পারবেন না। কম্পিউটারের ভাইরাস ও আমাদের রিয়াল ওয়ার্ল্ড এর ভাইরাস বা ফ্লু এর মত। এটি অনেক সময় মারাত্মক আকার ধারণ করতে পারে। এবং গ্রাহকের ডাটা চুরি, ফাইল করাপ্ট করে দেওয়া, বিভিন্ন ফাইল মুছে দেয়া,ব্যবহারকারীর ডাটা চুরি, পাসওয়ার্ড চুরি, কিবোর্ড ট্র্যাক করা, ব্রাউজারের সেভ করা পাসওয়ার্ড চুরি ইত্যাদি কাজ করে থাকে।

ভাইরাস বা ম্যালওয়ার কি-

ভাইরাস এমন একটি প্রোগ্রাম যা আমাদের কম্পিউটার এর ক্ষতি সাধন করে থাকে।এই প্রোগ্রাম গুলি তৈরি করা হয় কম্পিউটারের ক্ষতি সাধনের জন্য এবং কম্পিউটারের ব্যবহারকারীর তথ্য চুরি করার জন্য। এটি বিভিন্ন মাধ্যমে কম্পিউটারে প্রবেশ করে এবং ভিতরে ভিতরে এর কাজ চালিয়ে যায় যা ব্যবহারকারীর সহজে বুঝে উঠতে পারে না।ভাইরাস বিভিন্ন কাজ করে থাকে যেমন কম্পিউটারের ফাইল গুলি নষ্ট করে দেওয়া, মুছে দেওয়া, এই ভাইরাস যে ব্যক্তি তৈরি করে তার নির্দিষ্ট ঠিকানা দেওয়া থাকে যেখানে ভাইরাসটি নিয়মিত আক্রান্ত কম্পিউটারের তথ্য প্রেরণ করতে থাকে।এছাড়া এটি কম্পিউটার কে সম্পূর্ণ নষ্ট করে দিতে পারে।

কম্পিউটারের ভাইরাস কিভাবে ছড়ায় –

কম্পিউটার ভাইরাস বিভিন্ন মাধ্যমে ছড়াতে পারে ।যেহেতু এটি আলাদাভাবে কম্পিউটারের অবস্থান করে না এটি মূলত কম্পিউটারে থাকা ফাইল বা সফটওয়্যার এর সাথে মিশে থাকে ।এবং এটি নিজেকে পূরণ করতে সক্ষম তাই একটি কম্পিউটার থেকে অন্য কম্পিউটারে ছড়িয়ে যাওয়া খুব সহজ ব্যাপার। এবং ব্যবহারকারীর যখন আক্রান্ত ফাইল বা সফটওয়্যার রান করে তখনই  এটি তার কাজ শুরু করে দেয়। কম্পিউটারের ভাইরাস যেসব মাধ্যমে প্রবেশ করে তা হল – আক্রান্ত কম্পিউটার থেকে কোন ফাইল গ্রহণ করলে,সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে থাকা বিভিন্ন স্পাম লিঙ্ক থেকে,আমরা বিভিন্ন সময় আমরা বিভিন্ন সাইট থেকে বিভিন্ন এপ্স ডাউনলোড করে থাকি যেগুলো ট্রাস্টেড কি না সে বিষয়ে না জেনেই।এটি করা কখনোই ঠিক নয় কারন এর মাধ্যমে খুব সহজেই ভাইরাস আমাদের কম্পিউটারে প্রবেশ করতে পারে।আমাদের ইমেইলে অনেক সময় অপরিচিত লোকজন বিভিন্ন চটকদার মেইল পাঠায়। কিন্তু কে পাঠালো এ বিষয়ে আমাদের জানা থাকে না।এবং মেইল গুলোতে থাকে বিভিন্ন লিংক যেটিতে প্রবেশ করার জন্য আপনাকে অনুপ্রাণিত করা হয়।এই সকল লিংকে না জেনে বুঝে কখনোই প্রবেশ করা উচিত নয়।কারন এভাবে আপনি পড়তে পারেন ভাইরাসের খপ্পরে।

আমাদের কম্পিউটারকে ভাইরাস মুক্ত রাখতে হলে উপরোক্ত বিষয়গুলো খেয়াল রাখতে হবে এবং এই সমস্ত কাজ থেকে বিরত থাকতে হবে।কারণ আপনার কম্পিউটারটি ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হলে আপনার ডাটা নষ্ট হওয়ার সাথে আপনি পরতে পারেন বিভিন্ন সমস্যায়। যেমন সোশ্যাল মিডিয়ার একাউন্ট,ব্যাংক একাউন্ট ইত্যাদি হ্যাক হয়ে যেতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *