কাটা ছেঁড়া এবং পুড়ে যাওয়ার দাগ দূর করার ঘরোয়া কিছু টিপস

আমাদের নিত্যদিনের জীবনে বিভিন্ন বাধা বিপত্তি সঙ্গী হয়ে থাকে। আমরা যতই বিপদ আপদ থেকে দূরে থাকতে চাই কিন্তু অনাকাঙ্ক্ষিত ভাবে আমাদের অনেকের জীবনে নানা ধরনের দুর্ঘটনা ঘটে যায়। হতে পারে সেটা আকস্মিক ভাবে বা আমাদের সাবধানতার অভাবে। তা হতে পারে ছোট খাটো বা বড়। আর এ কারণে আমাদের অবশ্যই সাবধান ভাবে চলাফেরা করতে হবে এবং সব ক্ষেত্রে সাবধানতা বজায় রাখতে হবে। তবেই আমরা দুর্ঘটনার হার কমিয়ে আনতে পারব। আমাদের অনেক সময় সাধারণ কাঁটাছেঁড়ায় এবং পুড়ে যাওয়ার মতো ঘটনা ঘটে। কাটা ছেঁড়া ছোট হলেও বা পুড়ে যাওয়া সামান্য হলেও তার ক্ষত সেরে গেলেও তার দাগ থেকে যায় অনেকদিন পর্যন্ত। আজ আমরা জানবো কাটা ছেঁড়া এবং পুড়ে যাওয়ার থেকে যে দাগ তৈরি হয় তা কিভাবে খুব দ্রুত সারিয়ে তোলা যায়।


লেবু এবং শসার রসের টিপস-
আমাদের ছোটখাট কাটাছেঁড়া এবং পুড়ে যাওয়া থেকে যে দাগ তৈরি হয় তা সারাতে আমরা লেবু এবং শসার রস ব্যবহার করতে পারি এক্ষেত্রে একটি লেবুর রস বের করে নিন। এবং একটি শসার অর্ধেকের রস করে লেবুর রসের সাথে মিশিয়ে নিন। এবার লেবু এবং শসার দিনে দু তিনবার যেখানে দাগ রয়েছে সেখানে ভালো করে ম্যাসাজ করুন। লেবুর রসে থাকা সাইট্রিক এসিড দ্রুত কোষ বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে এবং শসার রস দাগ হালকা করতে সহায়তা করে।


চন্দনের গুঁড়ো এবং গোলাপ জলের ব্যবহার-
ত্বকের যত্নে চন্দনের ব্যবহার হয়ে আসছে সেই আদিম যুগ থেকে। চন্দন আমাদের ত্বককে সুন্দর করে এবং বিভিন্ন দাগ দূর করে। ক্ষতের থেকে তৈরি দাগের উপর ভিত্তি করে পরিমাণমতো চন্দনের গুঁড়ো নিন এবং পরিমাণমতো গোলাপ জল মিশিয়ে পেস্ট করে নিন। চন্দনের গুঁড়ো এবং গোলাপ জলের পেস্ট দিয়ে দাগের উপর রাতের বেলা ঘুমোতে যাওয়ার আগে প্রলেপ দিন।সকাল বেলা ধুয়ে ফেলুন।চন্দনের আর গোলাপ জলের এই পেস্ট দ্রুত আপনার দাগ কে সারিয়ে তুলবে।


অ্যালোভেরার রস এর ব্যবহার-
অ্যালোভেরার রস হচ্ছে একটি জাদুকরী উপাদান। এটি বিভিন্ন ভাবে ব্যবহার করা হয় রূপচর্চার জন্য। ক্ষতস্থানে যদি দিনে 2-3 বার এলোভেরার রস লাগানো হয় তাহলে দ্রুত দাগ সেরে যাবে।
পেঁয়াজ এবং রসুনের রসের ব্যবহার-
অ্যান্টিইনফ্লেমেটরি ও অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদানের জন্য বেশ জনপ্রিয় অনেক আগে থেকেই পেঁয়াজ এবং রসুনের রস। দিনে তিন চারবার পেঁয়াজের এবং রসুনের রস আক্রান্ত স্থানে লাগালে দ্রুত ফল পাওয়া যায় তবে এটি নিয়মিত ব্যবহার না করলে ফল পেতে অনেক দেরি লাগে।
প্রচুর পরিমাণে পানি পান করা-
প্রতিদিন দুই থেকে তিন লিটার পানি পান করার ফলে দেহের কোষের পরিমান বৃদ্ধি পায়। তাই নিয়মিত প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে হবে।
মধুর ব্যবহার-
আক্রান্ত স্থানে নিয়মিত মধু ব্যবহার করলেও দ্রুত ফল পাওয়া যায়। নিয়মিত মধু দিয়ে ম্যাসাজ করুন যেসব স্থানে দাগ রয়েছে দেখবেন দ্রুত সেরে যাবে।

(Visited 23 times, 1 visits today)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *