কেন বিভিন্ন বই পড়বেন

কেন বই পড়বেন কারণ বই হলো আত্মার খোরাক। বই পড়া মাধ্যমে আমরা বিভিন্ন জ্ঞান অর্জনের পাশাপাশি বিনোদন পেয়ে থাকি। এবং বিভিন্ন অজানা বিষয় সম্পর্কে জানতে পারি। মানুষের জীবনে এক পরম বন্ধু হিসেবে কাজ করে বই। একটি মানুষকে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার জন্য বইয়ের ভূমিকা অপরিসীম।বই পড়া সম্পর্কে বিভিন্ন মনীষীরা বিভিন্ন ধরনের উক্তি দিয়েছেন। এর থেকে আমরা সহজেই বুঝতে পারি মানুষের জীবনে বই এর প্রয়োজনীয়তা কতটুকু।

বই পড়া!

মানুষের জীবনের সুখ দুঃখ হাসি কান্না সব কিছুই রয়েছে। এরইমধ্যে মানুষ জীবনের মানে খুঁজে বেড়ায়।বই আমাদের চিন্তাশক্তিকে প্রসারিত করতে সাহায্য করে। এবং সমাজের উন্নয়ন মূলক এবং ভালো কাজের জন্য অনুপ্রেরণা যোগায়। আমরা স্কুল কলেজে নানান পাঠ্য বই পড়ে থাকি। তবে এর বাইরে আমাদের বই পড়ার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। আমরা সকল বইয়ের বাইরে বিভিন্ন গল্প-উপন্যাস ভ্রমণ কাহিনী ইত্যাদি পড়তে পারি। এতে আমাদের আত্মতৃপ্তি ঘটবে। এবং যারা পড়ালেখার ভিতরে রয়েছেন তাদের পড়ার প্রতি অনীহা দূর হবে। কারণ আমাদের পাঠ্যবইয়ের সিলেবাসে রয়েছে শুধু কিছু ধরা বাঁধা বিষয় যা আমাদের একঘেয়েমি এর কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। আপনি যদি পাঠ্যবইয়ের পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের গল্প, উপন্যাস, ভ্রমণ কাহিনী এতে সকল ধরনের বই পড়েন তাহলে আপনার একঘেয়েমি ধরা পাঠ্যবইয়ের প্রতি অনীহা দূর হবে। এ সকল কিছুর বাহিরেও বই আমাদের আরো অনেক উপকার সাধন করে।

শিক্ষা গ্রহণের কোনো শেষ নেই মানুষ জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত শিক্ষা গ্রহণ করে। আর শিক্ষা গ্রহণের অন্যতম প্রধান উৎস হচ্ছে বই। বই আমাদের শিক্ষা গ্রহণের পাশাপাশি শারীরিক এবং মানসিক উন্নতির বিকাশ ঘটায়। যেমন অবসাদ দূর করে, আমরা অনেক সময় একা থাকতে থাকতে অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়ে সেই সময় আপনি যদি বই পড়েন তাহলে আপনার অবসাদে এবং একঘেয়েমি দূর হয়ে যাবে এবং মন প্রফুল্ল হবে।

বই কেন পড়বেন

ভ্রমণকাহিনী সম্পর্কিত বই করার ফলে আপনার বিভিন্ন স্থান সম্পর্কে একটি ধারণা লাভ হবে। আপনি যদি বইটি না পড়তেন তাহলে সেখানে যাওয়া হবে কিন্তু কোনোভাবেই তার সম্পর্কে জানতে পারবেন না।

আমরা বিভিন্ন বিখ্যাত ব্যক্তির জীবনী ও করতে পারি। যারা বিখ্যাত ব্যক্তি তাদের জীবন থেকে আমাদের অনেক কিছু রয়েছে শিক্ষা গ্রহণ করার মত। তার জীবন সম্পর্কিত বই পড়ার ফলে আমরা সব বিষয়ে ধারণা লাভ করতে পারি।

একজন লেখক চান তার জ্ঞানের আলোকে কোন বিষয়কে সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তুলতে। এবং তার চিন্তাধারা এবং মনোভাব সকল কিছুই তাঁর লেখার মাধ্যমে ফুটে উঠতে পারে। আমরা যদি সব লেখা পড়ে তাহলে আমরা তার চিন্তা ধারা সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করতে পারব।

শব্দ ভান্ডার সমৃদ্ধ করার একটি অন্যতম উপায় হচ্ছে বই পড়া। বিভিন্ন নতুন নতুন বই পড়ার ফলে আমরা নতুন নতুন অনেক শব্দের সাথে পরিচিত হব যেগুলো আমরা আগে কখনো জানতাম না।

তাহলে বুঝতে পারছি আমাদের জীবনে বইয়ের গুরুত্ব কতখানি এবং বই পড়ার প্রয়োজনীয়তা কতটুকু। তাই আমরা অবসর সময় বিভিন্ন ধরনের বই পড়ে বিনোদনের পাশাপাশি জ্ঞান অর্জন করতে পারি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *