ই মেইল একাউন্ট খোলার পদ্ধতি

ইমেইল হচ্ছে ইলেকট্রোনিক মেইল এর সংক্ষিপ্ত রূপ। বিভিন্ন কোম্পানি আমাদের ইমেইল সেবা দিয়ে থাকে এর মধ্যে অন্যতম একটি হচ্ছে জিমেইল। জিমেইল গুগল কোম্পানির একটি সেবা। আজ আমরা শিখব কিভাবে একটি জিমেইল একাউন্ট খোলা যায়। আগেকার মানুষ যোগাযোগের মাধ্যম হিসেবে চিঠিপত্র ব্যবহার করত। বর্তমানের চিঠিপত্রের তেমন কোন প্রচলন নেই। কারণ বর্তমান সময়ে সবকিছুই আধুনিক হয়ে গিয়েছে। তাই এখন আর কারো সাথে যোগাযোগ করার জন্য চিঠি ব্যবহার করা হয় না। শুধুমাত্র কিছু দাপ্তরিক কাজের জন্য এখন বর্তমানে চিঠিপত্র ব্যবহৃত হয়। কিন্তু সব কাজের ক্ষেত্রেও পরিবর্তন দেখা যায়। বর্তমানে চিঠিপত্র ব্যবহৃত হতো বিভিন্ন ধরনের অফিশিয়াল কাগজ পত্র প্রেরণের ক্ষেত্রে। কিন্তু এক্ষেত্রেও এখন অনেক আধুনিকতার ছোঁয়া লেগেছে। বর্তমানের অফিস-আদালতের কাগজপত্র এখন আর ডাক মাধ্যমে পাঠানো হয় না।বর্তমানে সব কাগজপত্র ইমেইল করে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। এবং প্রত্যেকের একটি ইমেইল একাউন্ট থাকা দরকার।আমরা আগে যে সে জিমেইল হচ্ছে ইমেইল এর একটি সেবার নাম। এটি গুগলের একটি সেবা। গুগল জিমেইল নামে তাদের ইমেইল সেবা প্রদান করে থাকে। কিন্তু বর্তমান সময়ে সর্বাধিক জনপ্রিয় হচ্ছে জিমেইল।

 কিভাবে একটি জিমেইল একাউন্ট খুলতে হয় –

1⃣ জিমেইল একাউন্ট খুলতে প্রথমে এই লিঙ্কে যান👆

2⃣লিংকে প্রবেশ করার পরে এরকম একটি পেজ আসবে –

স্ক্রিনশটে মার্ক করা অ্যাকাউন্ট তৈরি করুন অপশনটি নির্বাচন করুন।

2⃣অ্যাকাউন্ট তৈরি করুন অপশনে ক্লিক করার পর এরকম দেখাবে-

এখান থেকে আমার জন্য অপশন টি সিলেক্ট করুন।

3⃣এরপরে আপনার বিভিন্ন তথ্য দেওয়ার জন্য একটি ফর্ম আসবে!

১নং ঘরে আপনার নাম।

২ নং ঘরে আপনার পদবি।

৩নং ঘরে আপনার মেইল এড্রেস কি দিন। অর্থাৎ আপনি আপনার জিমেইল এর এড্রেস কি বানাতে চান সেটি দিন। আপনি আপনার নাম এবং কিছু সংখ্যা দিতে পারেন।

৪নং ঘরে আপনার জিমেইল এর পাসওয়ার্ড দিতে চান সেটি দিন।

৫নং ঘরে পাসওয়ার্ডটি আবার দেন।

এবার পরবর্তী লেখাতে ক্লিক করুন।

4⃣এর পরের নম্বর ভেরিফিকেশনের  পেজ আসবে –

এখানে আপনার ফোন নাম্বারটি দিন এবং পরবর্তী বাটনে প্রেস করুন (অনেক ক্ষেত্রেই মোবাইল নম্বর ভেরিফিকেশন  অপশনটি  নাও আসতে পারে)

5⃣আপনি যে নম্বরটা দিয়েছেন সে নম্বরে একটি এসএমএস আসবে –

এস এম এস টি তে একটি কোড থাকবে কোডটি যাচাইকরণ কোড টি লিখুন এই বক্সটিতে দিয়ে যাচাই লেখাতে ক্লিক করুন।

6⃣আপনার ফোন নম্বর ভেরিফিকেশন সম্পন্ন  হলে আপনাকে পরবর্তী একটি পেইজে নিয়ে যাওয়া হবে –

১নং ঘরে আপনার রিকভারি ফোন নম্বর দেন।আপনার পাসওয়ার্ড ভুলে গেলে বা কোন কারনে পাসওয়ার্ড রিসেট করতে হলে এটি কাজে দেবে।

২ নং ঘরে আপনি যদি অন্য কোন ইমেইল কে রিকভারি অপশন হিসেবে সেট করতে চান তাহলে এই মেইলটি দিন।

আপনার জন্ম তারিখ সেট করুন।

আপনার লিঙ্গ সেট করুন। অর্থাৎ আপনি পুরুষ নাকি মহিলা তা নির্বাচন করুন।

পরবর্তী লেখাতে ক্লিক করুন।

7⃣এটি আপনার ইমেইল তৈরির শেষ ধাপ!

আপনার সামনে যে নতুন পেজটি আসবে সেটি নিচের দিকে স্ক্রল করলে পরে আমি সম্মত লেখা একটি অপশন আসবে। সেটিতে ক্লিক করলেই আপনার জিমেইল তৈরীর কাজ শেষ হয়ে যাবে।

আমাকে সাম্প্রতিক জিমেইল এ নিয়ে যান লেখাতে ক্লিক করলে সরাসরি আপনার অ্যাকাউন্টে লগ ইন হয়ে যাবে।

পোস্টটি থেকে আপনারা সকলে অবশ্যই বুঝতে পেরেছেন একটা জিমেইল কিভাবে তৈরি করতে হয়।তারপর যদি কারো কোন সমস্যা থাকে আপনারা কমেন্ট করতে পারেন। আপনাদের সমস্যার সমাধান করে দেওয়া হবে। 

 

(Visited 25 times, 1 visits today)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *