মোবাইল ভাইরাস মুক্ত রাখার উপায়

আমরা সবাই স্মার্ট ফোন ব্যবহার করি। স্মার্টফোনের বিভিন্ন কারণে ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হতে পারে। তাই আমাদের উচিত আমাদের সাধের মোবাইল ফোনটি যাতে ভাইরাস মুক্ত থাকে সে বিষয়ে খেয়াল রাখা এবং কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করা। আমাদের এই পোষ্টের মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন কিভাবে আপনি আপনার মোবাইল ফোনকে ভাইরাস মুক্ত রাখবেন –

বর্তমানে মোবাইল ফোন হয়ে উঠেছে নিত্যদিনের সঙ্গী। মোবাইল ফোন ছাড়া এক মুহূর্ত মানুষ চলতে পারে না। এটি আমাদের উন্নতির এবং উন্নত জীবনযাপনের অন্যতম একটি উপাদান । কিন্তু আমাদের এই অপরিহার্য উপাদানটি একটু অসাবধানতার কারণেই ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারে। তাই আমাদের মোবাইল ফোনের সুরক্ষার জন্য এবং ভাইরাস দ্বারা যাতে আক্রান্ত না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

তাহলে আসুন আগে জেনে নেই ভাইরাস আমাদের মোবাইল ফোনে কি কি ক্ষতি সাধন করতে পারে –

ভাইরাস বিভিন্ন কারণে তৈরি করা হয়।সেটি হতে পারে আপনার ডিভাইসের ক্ষতিসাধন থেকে শুরু করে আপনার ক্ষতিসাধন পর্যন্ত। তাহলে বুঝতেই পারছেন এর নাম ভাইরাস দেওয়া হয়েছে কেন।বিভিন্ন ভাইরাস যেমন আমাদের দেহের ক্ষতি সাধন করে। সেরকম মোবাইল ফোনের ভাইরাস মোবাইলের ক্ষতি সাধন করে। আর এর উপর ভিত্তি করে এর নাম ভাইরাস দেয়া হয়েছে। ভাইরাস হচ্ছে এমন একটি প্রোগ্রাম যা আপনার ফোনের ভিতরে ঢুকে আপনার ফোনের ডাটা চুরি, হার্ডওয়্যার এবং সফটওয়্যার এর ক্ষতিসাধন ইত্যাদি করতে পারে। এমনকি আপনার ফোনটি সম্পূর্ণ নষ্ট করে দিতে পারে। তাহলে এর থেকে আমরা ভাইরাস কি জিনিস সে সম্পর্কে সামান্য হলেও ধারনা পেলাম এবং এর কাজ কি সেটাও জানতে পারলাম।

তাহলে আসুন এবার জেনে নেয়া যাক আমাদের মোবাইল ফোনে ভাইরাস কিভাবে আসে –

আমাদের মোবাইল ফোনে ভাইরাস বিভিন্ন ভাবে আসতে পারে। যেমন,কোন সফটওয়্যার বা ফাইল ডাউনলোডের সময়, কারো সাথে কোন ফাইল আদান প্রদানের সময়। তাহলে প্রশ্ন উঠতে পারে যে আপনি জেনে শুনে কেন ভাইরাস আপনার ফোনে প্রবেশ করাবেন। আসলে ভাইরাস আমাদের ফোনে সরাসরি কোন সফটওয়্যার বা অ্যাপ্লিকেশন আকারে আসে না।এটি আসে আমাদের আদান-প্রদান করা বা ডাউনলোড করা ফাইল এর সঙ্গে মিশে যা সাধারণ মানুষের পক্ষে বুঝে ওঠা সম্ভব নয়।এটি আমাদের মোবাইলে প্রবেশ করার পরে অটোমেটিক রান হয়। এবং ভিতরে ভিতরে এর কাজ চালিয়ে যেতে থাকে। কিন্তু আমরা তা বুঝে উঠতে পারিনা।

মোবাইলকে ভাইরাসের আক্রমণ হতে রক্ষা করা যেতে পারে যেভাবে –

⏩নির্ধারিত স্টোর থেকে অ্যাপ ইন্সটল করতে হবে।

⏩কারো কারো সাথে ফাইল আদান-প্রদান করতে হলে জেনে নিতে হবে যে তার মোবাইলটি ভাইরাসের দ্বারা আক্রান্ত কিনা।যদিও এটি জানা সহজ কাজ নয় তবুও চেষ্টা করতে হবে যেনে নেওয়ার জন্য।

⏩সব সময় বিশ্বাসযোগ্য সাইট থেকে গান বা ফাইল ডাউনলোড করতে হবে।

⏩ইন্টারনেট ব্যবহারে সতর্ক থাকতে হবে এবং কোন লিংক ভিজিট করার পূর্বে খেয়াল করে নিতে হবে। এবং দেখতে হবে লিংকটি ঠিক আছে কিনা। যদি কোন সমস্যা বোঝেন তাহলে সেসব লিংক এড়িয়ে যান।

⏩যদি অতিরিক্ত মাত্রায় ইন্টারনেট ব্রাউজিং ফাইল আদান-প্রদান সফটওয়্যার ইন্সটল ইত্যাদি করতে হয় তাহলে প্রয়োজনবোধে এন্টিভাইরাস ব্যবহার করতে পারেন।

⏩কোন এপ্স এর ক্র্যাক বা মোডিফাই ভার্সন ব্যবহার করা যাবে না।

উপরোক্ত বিষয়গুলো মেনে চললে আপনার ফোনটি ভাইরাস থেকে অনেক নিরাপদ থাকবে। আর এ কারণেই এই টেস্ট গুলো সব সময় মেনে চলার চেষ্টা করবেন।

(Visited 21 times, 1 visits today)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *