রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে এই ১০ টি কাজ অবশ্যই করবেন

আমাদের প্রতিদিনের ব্যস্ত জীবন কতই না কাজের চাপ এ সকল কাজ সম্পন্ন করে আমাদের শরীর ক্লান্ত হয়ে পড়ে। এর জন্য চাই বিশ্রাম। বিশ্রাম হচ্ছে আমাদের শরীরের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। আর শরীরে পর্যাপ্ত পরিমাণে বিশ্রাম এর জন্য প্রয়োজন ঘুম। ঘুমের মাধ্যমেই আমরা আমাদের শরীরকে চাঙ্গা করে তুলতে পারি। তবে ঘুম ভালো না হলে আমাদের শরীর চাঙ্গা হয় না বরং আমাদের শরীরে অলসতা অনুভব হয়। তাই ঘুম কে সুন্দর করে তুলতে এবং আরামপ্রদ করতে এই টিপসগুলো জেনে নেয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

এই টিপসগুলো জানলে আপনার শরীরের ঘুমের চাহিদা মেটার পাশাপাশি আপনার শরীর পরবর্তী দিনের জন্য প্রস্তুত হবে এবং খুব সুন্দর একটি দিন ভোগ করতে পারবেন। তাই প্রতি রাতে ঘুমানোর আগে এসব কাজগুলো অবশ্যই করবেন।এছাড়া আমার প্রতিদিনের ব্যস্ততার কারণে শরীরের যত্ন নিতে পারিনা। এই কাজগুলো হতে পারে শরীরের যত্নের অন্যতম একটি উপায়।

তাই ঘুমানোর আগে নিজের জন্য একটু সময় দিন, তা হলেই সকালে উঠে বেশ ঝরঝরা এবং ফ্রেশ লাগবে।

১-সুন্দর ঘুমের জন্য অপরিহার্য বিষয হচ্ছে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকা। কারন পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকলে গায়ে ময়লা ধুলোবালি না থাকলে আপনার ঘুম হবে খুব আরামপ্রদ।তাই প্রতিদিন ঘুমাতে যাওয়ার আগে ফ্রেস হয়ে নিন এবং যে পোশাক পড়ে ঘুমাবেন তা অবশ্যই পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখবেন।

২- পিম্পল!অনেকেই এইসব সমস্যায় ভুগে থাকেন যাদের পিম্পল রয়েছে তারা দুশ্চিন্তা না করে পিম্পলের ওপর সামান্য টুথপেস্ট লাগিয়ে ঘুমিয়ে পড়ুন। সকালে দেখবেন পিম্পল উধাও হয়ে যাবে। তবে মনে রাখবেন, জেল নয়, পেস্ট লাগাবে।

৩-  রাত জেগে সিনেমা দেখা লেখাপড়া করা এবং অফিসের বাড়তি কাজ করার কারণে চোখের নিচে কালি পড়ে। আর তা নিয়েই দুশ্চিন্তার শেষ নেই আমাদের।এ ক্ষেত্রে নাইট ক্রিম দারুণ কাজে দেবে। এগুলো চোখের নিচে মাস্কের মতো লাগিয়ে রাখুন। সারা রাত লাগিয়ে রাখলে চোখের কালি দূর হবে।

৪-আমাদের  অনেকের বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পা ফাটার সমস্যাটাও বাড়তে থাকে। রাতে ঘুমানোর আগে পায়ের একটু যত্ন নিলে সকাল নাগাদ অবস্থার উন্নতি হবে।এর থেকে রেহাই পেতে পেট্রোলিয়াম জেলি বা ময়েশ্চারাইজার লোশন পায়ে মেখে পাতলা সুতির মোজা পরে ঘুমান। সকালে পা মসৃণ দেখাবে এবং পা ফাটার সমস্যা থেকে মুক্ত থাকতে পারবেন ।

৫-আমাদের অনেকর ঘুমের সময় এদিক ওদিক ঘোরাফেরা করার অভ্যাস রয়েছে। এলোমেলো ঘুমের কারণে আমাদের সময় চুল ভেঙে যায়। এ সমস্যা সমাধান হতে পারে আপনার বালিশের কভার।এমন কভার ব্যবহার করুন যেন চুল পিছলে যায়।এর ফলে বালিশে চুল আটকে যাবে না এবং মাথা এদিক-ওদিক করলে চুল ভেঙে যাবে না।

৬-  শুকনো ঠোঁট বা ফাটা ঠোট কারোই কাম্য নয়। কিন্তু যত্নের অভাব এবং এসি রুমে ঘুমানোর কারণে এমন সমস্যা প্রায়ই দেখা দেয়। তাই ঠোঁটকে পুষ্ট এবং সজীব রাখতে রাতে ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে ঘুমান। ঠোঁট ফাটার সমস্যা কমবে এবং বাইরে বেরোনোর আগে তার আর বাড়তি যত্নের প্রয়োজনই পড়বে না।

৭-নখের যত্নে  রাতে নখ এবং নখের আশপাশের ত্বকে হালকা নারকেল তেল মেখে নিন। এমনটা করলে নখ হবে সুস্থ এবং ঝকঝকে।

৮-  বাজারে অনেক চোখের পাতা বড় করার সিরাম পাওয়া যায়। ঘুমানোর আগে রাতে ব্যবহার করতে পারেন। সম্ভব হলে ক্যাস্টর অয়েলও লাগিয়ে নিতে পারেন। ঘুম থেকে ওঠার পর চোখ দুটি আরও আকর্ষণীয় দেখাবে।

৯-পায়ের রুক্ষতা দূর করতে ব্রাউন সুগার এবং অলিভ অয়েল দিয়ে স্ক্রাব বানিয়ে ব্যবহার করতে পারেন। এগুলো দুই হাতে মেখে ধুয়ে নিয়ে ভিটামিন ‘ই’ সমৃদ্ধ ক্রিম লাগিয়ে নিন। দিন কয়েক বাদে হাত দুটো হবে মসৃণ এবং সুন্দর।

১০- রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে নাইট ক্রিম ব্যবহারের আগে মুখে ভিটামিন ‘ই’ সমৃদ্ধ তেল লাগিয়ে নিন। এরপর ক্রিম ব্যবহার করুন।

উপরোক্ত টিপসগুলো মারার ফলে আপনার সুন্দর ঘুম হবে এবং এর পাশাপাশি আপনার শরীরের জন্য অতিরিক্ত যত্নের তেমন প্রয়োজন পড়বে না। কারণ আমরা ব্যস্ততার কারণে অনেক সময় শরীরের যত্ন নিতে পারিনা। এটি হতে পারে আপনার শরিল কে সুন্দর রাখার একটি অন্যতম উপায়।

(Visited 13 times, 1 visits today)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *